Main Menu

চট্টগ্রামে বিস্ফোরণে নিহতের প্রতি রুশনারা আলীর শোক

বিদেশবার্তা২৪ ডেস্ক:
চট্টগ্রামের সিতাকুণ্ডের কনটেইনার ডিপোতে ভয়াবহ বিস্ফোরণে মৃত্যু হয়েছে প্রায় অর্ধশত মানুষের। আহত হয়েছেন কয়েকশ। এই ঘটনায় শোক প্রকাশ করেছেন ব্রিটিশ লেবার পার্টির রাজনীতিবিদ ও ইয়ং ফাউন্ডেশনের সহকারী পরিচালক এবং বেথনাল গ্রিন এ্যান্ড বাউয়ের জন্য সংসদ সদস্য রুশনারা আলী।

বাংলাদেশি-ব্রিটিশ এই রাজনীতিবীদ সামাজিক মাধ্যমে বিবিসির নিউজ শেয়ার করে লিখেছেন, বাংলাদেশে এই ভয়াবহ বিস্ফোরণের খবরে খুবই মর্মাহত। যারা প্রিয়জনদের হারিয়েছেন এবং যারা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন তাদের সঙ্গে আমিও ব্যথিত। বাংলাদেশ অগ্নিকাণ্ড: ডিপো বিস্ফোরণে ৪০ জনের বেশি নিহত, শতাধিক আহত।

শনিবার রাতে চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডের বিএম কনটেইনার ডিপোতে বিস্ফোরণ ও অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় নিহতের প্রকৃত সংখ্যা জানালো স্থানীয় প্রশাসন। রোববার থেকে একাধিক সংখ্যা বলায় গণমাধ্যমে তা নিয়ে সংবাদও প্রচার হয়। কিন্তু সোমবার (৬ জুন) দুপুরে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম আহসান সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন, ‘এখন পর্যন্ত লাশ পাওয়া গেছে ৪১ জনের। তাই নিহত মানুষের সংখ্যা ৪১।’

যদিও এর আগে নিহতের সংখ্যা কখনও ৪৯ থেকে, কখনও ৪৬ বলে দাবি করে বিভিন্ন সংস্থা। বিশেষ করে ৪৯ জনের মৃত্যুর খবরটি শেষ পর্যন্ত প্রকাশিত হয়েছিল। যদিও প্রশাসন বলছে, আগের ৪৯ জনের মারা যাওয়ার তথ্য ভুল ছিল।

মারা যাওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে আরও রয়েছেন ডিপোর কর্মকর্তা-কর্মচারী ও পরিবহন শ্রমিকেরা। এ ছাড়া আহত হয়েছেন ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশের সদস্যসহ দুই শতাধিক শ্রমিক-কর্মচারী। তাদের মধ্যে পুলিশের এক সদস্যের পা বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে।

গুরুতর আহত ব্যক্তিদের মধ্যে মোট ১৫ জনকে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর হেলিকপ্টারে করে উন্নত চিকিৎসার জন্য চট্টগ্রাম থেকে ঢাকায় নেওয়া হয়েছে। তাদের ঢাকায় শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়েছে। আহত ব্যক্তিদের চিকিৎসা চলছে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। সবশেষ সোমবার সকালেও একজনকে নিয়ে আসা হয়েছে বার্ন ইনস্টিটিউটে।

এদিকে শনিবার রাতে আগুন লাগার পর থেকে একে একে লাশের সংখ্যা বাড়তে থাকে। ফলে একেক সময় একেক সংখ্যা জানা যায়। রোববার চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মমিনুর রহমান ও সিভিল সার্জন মোহাম্মদ ইলিয়াছ চৌধুরী নিহত মানুষের সংখ্যা ৪৯ বলে জানিয়েছিলেন। তবে পুলিশের সঙ্গে সমন্বয় করে এই দুই সংস্থাও সোমবার নিহত মানুষের সংখ্যা ৪১ বলে জানায়।

পুলিশের অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক (ডিআইজি) আনোয়ার হোসেন হাসপাতালে গণমাধ্যমকে বলেন, নিহত মানুষের সংখ্যা ৪১।

বিএম কনটেইনার ডিপোর ভেতর আগুন লাগার পর বিস্ফোরণে কেঁপে উঠেছিল আশপাশের প্রায় আড়াই বর্গকিলোমিটার এলাকা। ওই বিস্ফোরণ ও আগুনে পুড়ে যারা মারা গেছেন, তাদের মধ্যে নয়জনই ফায়ার সার্ভিসের সদস্য। তাদের বেশ কয়েকজন এখনও হাসপাতালে গুরুতর অবস্থায় চিকিৎসা নিচ্ছেন।






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published.