Main Menu

একসঙ্গে সারা জীবন থাকার জন্যই আমরা বিয়ে করেছি: পরীমনি

বিনোদন ডেস্ক:
শরিফুল রাজ ও পরীমনি বিয়ের পর এবারই প্রথম ভালোবাসা দিবস উদ্‌যাপন করছেন। শরিফুল রাজ চিত্রনায়িকা পরীমনিকে বিয়ে করবেন, এটা স্বপ্নেও চিন্তা করেননি। পরীমনিও কখনো ভাবেননি যে রাজকে বিয়ে করবেন। তবে রাজকে শুটিংয়ে দেখার পর নাকি মনে হয়েছে, একে বিয়ে করা যায়। ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে ‘সিবিএল মাঞ্চি চাংকি চক ভালোবাসার দিনে ভালোবাসার গল্প সিজন-৪’ অনুষ্ঠানে এসব গল্প শুনিয়েছেন রাজ ও পরীমনি।

অনুষ্ঠানে পরীমনি বলেন, ‘রাজের সঙ্গে দেখা হওয়ার পর মনে হয়েছে, তার রাজ্যে তো রানি হওয়াই যায়। আমিই প্রথম রাজকে প্রেমের প্রপোজ করেছি।’

প্রেমের প্রস্তাবের পর বেশি দিন প্রেম করার সুযোগ পাননি রাজ ও পরী। কিছুদিনের মধ্যে বিয়ে করে ফেলেন তারা। পরী বলেন, ‘আসলে আমাদের বিয়ে করা ছাড়া কোনো উপায় ছিল না। একসঙ্গে সারা জীবন থাকার জন্যই আমরা বিয়ে করে ফেলি।’

শরিফুল রাজ ও পরীমনির বিয়ের ঘটক ছিলেন পরিচালক গিয়াস উদ্দিন সেলিম। আর উকিল বাবা ছিলেন রেদওয়ান রনি। এই দুজনের চেষ্টায় চার হাত এক হয়। বিয়ের পরে নিজেদের বন্ধু নয়, স্বামী-স্ত্রী ভাবতেই ভালো লাগে পরীমনির। তিনি বলেন, ‘আমরা বিয়ের আগেও কখনো বন্ধু ছিলাম না। আমাদের ঘটা করে বন্ধুত্ব করা হয়নি। বন্ধুরা যেমন সময় কাটায়, সেভাবে সময়ও কাটানো হয়নি।’ তবে শরিফুল রাজ বলেন, ‘এখন আমরা বন্ধুর মতো সময় কাটাচ্ছি।’

ভালোবাসা দিবসের আগে ধারণ করা এ অনুষ্ঠানে বিয়ের পর প্রথম ভালোবাসা দিবস কীভাবে উদ্‌যাপন করবেন, সেই পরিকল্পনা জানান পরীমনি। তিনি বলেন, ‘আমার ইচ্ছা ছিল রাজকে অনেক বেশি সারপ্রাইজ করব ভালোবাসা দিবসে।’

আর ভালোবাসার কীভাবে শুরু হলো, সে গল্প বলতে গিয়ে শরিফুল রাজ বলেন, ‘আমাদের ভালোবাসার গল্প শুরু হয়েছে চরকি অরিজিনাল ফিল্ম গিয়াস উদ্দিন সেলিম পরিচালিত “গুনিন”–এর সেট থেকে। আসলে আমাদের সবকিছু হুটহাট করে হওয়া।’

মাঝখানে পরীমনি যোগ করেন, ‘আমার “গুনিন” সিনেমাতেও হুট করে জয়েন করা। কে আমার সহশিল্পী, সেটাও দেখার সুযোগ পাইনি। গিয়াস উদ্দিন সেলিম ভাই আমাকে সিনেমার জন্য বলেছেন, তাই আমি সিনেমায় জয়েন করেছি। আমার কাছে গল্প, কোথায় শুটিং হবে বা অন্য কিছু দেখার দরকার হয়নি। সিনেমাটি গিয়াস উদ্দিন সেলিম বানাচ্ছেন, এটাই আমার কাছে বড় বিষয়।’






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published.