Main Menu

সৌদিতে আইন সংস্কার, সুবিধা পাবেন বাংলাদেশের নারী শ্রমিকরা?

ডেস্ক রিপোর্ট:
সৌদিতে আইন সংস্কার, সুবিধা পাবেন বাংলাদেশের নারী শ্রমিকরা?
ভিশন-২০৩০ এর আওতায় সৌদি আরবে শ্রম আইন সংস্কার করা হয়েছে। এখন থেকে সেদেশে কাজ করা নারী শ্রমিকেরা পুরোনো চাকরিদাতার অনুমতি ছাড়াই নতুন জায়গায় কাজে যোগ দিতে পারবেন।

আগের আইনে গৃহকর্মীদের না জানিয়েই মালিকানা পরিবর্তন করা হতো। গৃহকর্মী নতুন জায়গায় যেতে না চাইলেও উপায় ছিল না। এখন নতুন আইনের তাদের কাছ থেকে অনুমতি নিতে হবে। নারী শ্রমিকরা না চাইলে সেখানে তাকে পাঠানো যাবে না। আইনের এই পরিবর্তনে ফলে কতটা সুবিধা পাবে বাংলাদেশের নারী কর্মীরা?

বাংলাদেশের অভিবাসন বিশেষজ্ঞরা আইনের এই পরিবর্তনকে ইতিবাচক হিসেবে দেখলেও সুবিধা পাওয়া নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন। তারা বলছেন, শুধু আইন পরিবর্তন হলেই হবে না। আইন বাস্তবায়নে তারা কতটা মনোযোগী সেটাও দেখতে হবে। বাংলাদেশ থেকে নারীদের পাঠানোর আগে এই বিষয়গুলোতে সম্যক ধারণা দিতে হবে। পাশাপাশি বাংলাদেশের দূতাবাস ও রিক্রুটিং এজেন্সিগুলোকেও ইতিবাচক হতে হবে।

সৌদি আরবে নারী গৃহকর্মীদের নির্যাতনের বিষয়টি বিশ্বজুড়েই আলোচিত। বিভিন্ন দেশ থেকে গৃহকর্মী হিসেবে যারা কাজ করতে দেশটিতে যান, তারা শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতনের শিকার হন। অনেকে যৌন নির্যাতনের শিকারও হন। তাদের অধিকাংশই বাংলাদেশ, পাকিস্তান, ফিলিপাইন্সসহ এশিয়ার উন্নয়নশীল দেশের দরিদ্র নারী।

ব্র্যাকের অভিবাসন বিভাগের প্রধান শরীফুল হাসান বলেন, ‘সৌদি আরবে গত কয়েক বছর ধরেই আইনের সংস্কার হচ্ছে। আইনের এই সুবিধা পেতে আমাদের কর্মীদের বেশ সময় লাগছে। সৌদি আরবে আগেও বলা হয়েছে, পুরুষ কর্মীরা চাইলে তাদেরও কাজ পরিবর্তন করতে পারবেন। এই পরিবর্তনটা কিন্তু খুব জটিল প্রক্রিয়া। আমাদের নারী কর্মীরা যারা যান তাদের পক্ষে আগের নিয়োগকর্তাকে ছেড়ে নতুন নিয়োগকর্তাকে খুঁজে পাওয়া বেশ কঠিন। কারণ তার শিক্ষা, যোগ্যতা, দক্ষতা খুব বেশি থাকে না। ফলে এর পুরোটাই নিয়োগকর্তা বা এজেন্সি নির্ভর। আইনে সুবিধা দেখালেও আমাদের নারীরা এই আইনের সুবিধা নিয়ে রাতারাতি বিরাট কোন পরির্তন চলে আসবে বলে আমার কাছে মনে হয় না।’

ব্র্যাকের অভিবাসন বিভাগের তথ্য অনুযায়ী, বর্তমানে দেশের বাইরে প্রায় ৯ লাখের মতো নারী কাজ করছেন। তাদের অর্ধেকই সৌদি আরবে। ২০১৫ সাল থেকে বাংলাদেশের নারীরা কাজ করতে সৌদি আরবে যাওয়া শুরু করেছেন। সে হিসেবে গত ৭ বছরে ৪ থেকে সাড়ে ৪ লাখ নারী বর্তমানে সৌদি আরবে কাজ করছেন।

সেন্টার ফর উইমেন অ্যান্ড চিলড্রেন স্টাডিজের সভাপতি অধ্যাপক ইসরাত শামীম বলেন, ‘সত্যি সত্যি কী তারা আইনের বাস্তবায়ন করবে? আমাদের নারী কর্মীরা কী একজনের কাজ ছেড়ে অন্য জায়গায় চাকরি নিতে পারবে? এটা দেখতে হবে। না দেখা পর্যন্ত আমরা এটা নিয়ে কিছু বলতে পারবো না। কত কিছুই তো আইনে আছে, বাস্তবে কী তারা সেই সুযোগ পাচ্ছে? এমওইউতে যা লেখা আছে, সেটাই তো তারা মান্য করে না। যদি বাস্তবায়ন করে তাহলে খুব ভালো। মধ্যপ্রাচ্য আন্তর্জাতিক কনভেনশনেই তো স্বাক্ষর করে না। তারা কোনও কমিটমেন্ট রাখে না। দেখেন জাপানে আমাদের নারীরা যাচ্ছে, তারা আইনটা কীভাবে ফলো করছে। কোরিয়ায় যাচ্ছে, কত সুন্দর ব্যবস্থা। সেখান থেকে যে ফিরে আসছে, সেটাও কত সুন্দরভাবে। এক হাউস থেকে অন্য জায়গায় গেলে যে আবারও নির্যাতনের শিকার হবে না, সেটা কে বলবে? এই যে তারা পাসপোর্ট নিয়ে নেয়, এটা কোন আইনে তারা নেয়?’

সৌদি গ্যাজেটের খবরে বলা হয়েছে, সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান ভিশন-২০৩০ আওতায় দেশটির নানা খাতে সংস্কারের নানা উদ্যোগ নিচ্ছেন। শ্রম আইনে পরিবর্তনও এর অংশ। সৌদি আরবের শ্রম মন্ত্রণালয় আইনে যে যে পরিবর্তন এনেছে, তার আওতায়, ঠিকমতো বেতন-ভাতা না দিলে বা বিপজ্জনক কাজে নিয়োজিত করলে গৃহকর্মীরা এটা নিয়ে কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগও করতে পারবেন। এছাড়া কর্মীর অনুমতি ছাড়াই চাকরিদাতা যদি তাকে অন্য ব্যক্তির কাজে নিয়োজিত করেন এবং শিক্ষানবিশ সময়ে যদি চাকরির চুক্তি বাতিল করেন, তাহলে কর্তৃপক্ষ ওই নিয়োগকর্তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পারবে।

অভিবাসন বিশেষজ্ঞ হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ বলেন, ‘সৌদি আরবে আইনে যে পরিবর্তন আনা হয়েছে সেটাতে আমাদের নারী কর্মীদের সুরক্ষা করবে কিনা সেটা এখন বড় আলোচনার বিষয়, কারণ সেখানে চাকরির স্থান বদলের সুযোগ নারীরা পেলেও চাকরি দাতাদের মানসিকতার বদল না হলে কোথাও তারা শাস্তিতে কাজ করতে পারবেন না। আগের আইনই তো চাকরিদাতারা মানেন না। আমাদের নারীদের ভাষাগত সমস্যা রয়েছে। ফলে আইনে তাকে যে সুবিধা দেবে সেটা সে নিতে পারবে কিনা সেটাও বড় প্রশ্ন।’

সৌদি আরবের মানবাধিকার কমিশনের (এইচআরসি) প্রেসিডেন্ট এবং জাতীয় মানব পাচার প্রতিরোধ বিষয়ক জাতীয় কমিটির চেয়ারম্যান আওয়াদ আলাওয়াদ গত সোমবার বলেছেন, ‘ভিশন-২০৩০ এর আওতায় এসব সংস্কার করা হচ্ছে। এর মধ্য দিয়ে সৌদিতে বিদেশি কর্মীদের চাকরি বদল ও চলাচলের স্বাধীনতা আরও বাড়বে।’

সৌদি আরবের আইনের আওতায় গৃহকর্মীদের সুরক্ষা দেওয়া হবে। এদিকে এইচআরসি এক বিবৃতিতে বলেছে, এসব সংস্কারের উদ্যোগ সৌদি আরবের প্রতি বিশ্ব সম্প্রদায়ের দীর্ঘস্থায়ী মনোযোগের প্রতিফলন। সূত্র: ডয়েচে ভেলে






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published.