Main Menu

শিক্ষার্থীদের ভিসা অ্যাপয়েন্টমেন্টের তারিখ জানাল মার্কিন দূতাবাস

নিউজ ডেস্ক:
যুক্তরাষ্ট্রের কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ফল সেমিস্টারে ভর্তি হওয়া বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের জন্য ভিসা অ্যাপয়েন্টমেন্টের তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে। আগামী বুধবার (২৫ মে) ভিসা অ্যাপয়েন্টমেন্ট দেবে ঢাকায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস।

মঙ্গলবার (২৪ মে) ঢাকায় মার্কিন দূতাবাস তাদের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে এক বার্তায় এ তথ্য জানায়।

এতে বলা হয়েছে, ফল সেমিস্টারের শিক্ষার্থীদের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। মার্কিন দূতাবাস আগামীকাল বুধবার ভিসা অ্যাপয়েন্টমেন্ট দেওয়া হবে। সকাল ৮টা থেকে বিকেল সাড়ে ৪টা পর্যন্ত ভিসা অ্যাপয়েন্টমেন্ট দেওয়া হবে। যারা ভিসা অ্যাপয়েন্টমেন্টের জন্য প্রস্তুত রয়েছে তাদের দূতাবাসে যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে।

বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের জন্য যুক্তরাষ্ট্র একটি আকর্ষণীয় গন্তব্য। করোনাভাইরাস মহামারির কারণে গত কয়েক বছর শিক্ষর্থীরা উচ্চ শিক্ষার জন্য তাদের স্বপ্নের দেশে যেতে পারেননি। বৈশ্বিক করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ায় অনেকে এরইমধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে যাওয়ার সবুজ সংকেত পেয়েছেন। শুধু তাই নয়, নতুন করে আবেদন করা অনেক শিক্ষার্থীও সাড়া পেয়েছেন সেখানে যাওয়ার। কিন্তু ঢাকার মার্কিন দূতাবাসে ভিসা সংক্রান্ত অ্যাপয়েন্টমেন্ট মিলছে না তাদের।

শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, ঢাকার মার্কিন দূতাবাস থেকে ভিসা অ্যাপয়েন্টমেন্ট পাচ্ছেন না তারা। এটি পেতে বিলম্বিত হওয়ায় অনেক শিক্ষার্থী শঙ্কার মধ্যে দিন পার করছেন। তারা বৃত্তি ও নির্বাচিত বিশ্ববিদ্যালয় হারানোর ভয় পাচ্ছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ফল ও স্প্রিং সেমিস্টারে শিক্ষার্থী ভর্তি নেওয়া হয়। আগস্টের শেষ থেকে সাধারণত ফল সেমিস্টার শুরু হয়। ডিসেম্বরের শেষ বা জানুয়ারির শুরুতে এ সেমিস্টার শেষ হলে শুরু হয় স্প্রিং সেমিস্টার। চলে মে পর্যন্ত। বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরা সাধারণত ফল সেমিস্টারেই বেশি ভর্তি হন।

এ বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাস বলছে, করোনা মহামারি শুরুর আগে ২০১৯ সালে প্রায় আট হাজার ৮০০ বাংলাদেশি শিক্ষার্থীকে অ-অভিবাসী বা এফ-ওয়ান ক্যাটাগরিতে ভিসা দেওয়া হয়েছে। যা ছিল রেকর্ড সংখ্যা। তবে করোনা মহামারির সময় আটকে পড়া এবং নতুন করে বিপুল সংখ্যক শিক্ষার্থীর আবেদন পড়ায় কিছুটা সমস্যা তৈরি হয়েছে। যে কারণে একসঙ্গে সবাইকে ভিসা অ্যাপয়েন্টমেন্ট দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না।

যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের তথ্য বলছে, দেশটিতে সাড়ে চার হাজারের বেশি কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানে পড়তে গেলে বছরে গড়ে প্রায় ২০ হাজার ডলার টিউশন ফি লাগে। এছাড়া থাকা-খাওয়াসহ অন্যান্য খরচ তো রয়েছে।

ইউনেস্কোর তথ্য বলছে, উচ্চ শিক্ষার জন্য বাংলাদেশ থেকে প্রতি বছর প্রায় ৭০ থেকে ৯০ হাজারের মতো শিক্ষার্থী বিদেশে যান। যার মধ্যে বড় একটি অংশ পাড়ি দেন যুক্তরাষ্ট্রে।

যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের তথ্য বলছে, দেশটিতে সাড়ে চার হাজারের বেশি কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানে পড়তে গেলে বছরে গড়ে প্রায় ২০ হাজার ডলার টিউশন ফি লাগে। এছাড়া থাকা-খাওয়াসহ অন্যান্য খরচ তো রয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হতে ফান্ডিংয়ের বিষয়টি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তাই স্নাতক পর্যায়ে সেখানে বাংলাদেশি শিক্ষার্থীর সংখ্যা খুবই কম। তবে মাস্টার্স ও পিএইচডিতে স্কলারশিপ, ফেলোশিপ, রিসার্চ অ্যাসিস্ট্যান্টশিপ, টিচিং অ্যাসিস্ট্যান্টশিপের সুযোগ রয়েছে।






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published.