Main Menu

আশ্রয়প্রার্থীদের রুয়ান্ডা পাঠাতে চায় ডেনমার্কও

নিউজ ডেস্ক:
ইউরোপমুখী আশ্রয়প্রার্থীদের রুয়ান্ডায় পাঠাতে এবার পূর্ব আফ্রিকার দেশটির সঙ্গে আলোচনা শুরু করেছে ইউরোপীয় ইউনিয়নের দেশ ডেনমার্ক৷ অনিয়মিত উপায়ে ইংলিশ চ্যানেল পাড়ি দিয়ে আসা আশ্রয়প্রার্থীদের পাঠাতে রুয়ান্ডার সঙ্গে গত সপ্তাহে এরকম একটি চুক্তি করেছে ব্রিটেন৷

অনিয়মিত পথে আসা আশ্রয়প্রার্থীদের আফ্রিকায় তৃতীয় কোনো দেশে পাঠানোর বিষয়ে অনেক দিন ধরেই পরিকল্পনা করে আসছিল ডেনমার্ক৷ এবার তা বাস্তবায়নে রুয়ান্ডার সঙ্গে আলোচনা শুরু করেছে দেশটি৷ চুক্তি হলে ইউরোপীয় ইউনিয়নের কোনো দেশের জোটের অভিবাসী ও আশ্রয় প্রক্রিয়া পাস কাটানোর প্রথম ঘটনা হবে এটি৷

রুয়ান্ডার সঙ্গে আলোচনা শুরুর বিষয়টি বুধবার বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে ডেনমার্কের অভিবাসনমন্ত্রী মাতিয়াস টেসফায়ে নিশ্চিত করেন৷ তিনি বলেন, ‘‘রুয়ান্ডা সরকারের সঙ্গে আমাদের আলোচনায় আশ্রয়প্রার্থীদের স্থানান্তরের প্রক্রিয়ার বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত রয়েছে৷’’

এই ধরনের উদ্যোগ নিয়ে সমালোচনা থাকলেও ডেনমার্কের সরকারের যুক্তি এটি মানবাপাচার বন্ধে সহায়তা করবে৷ টেসফায়ে বলেন, চুক্তির লক্ষ্য হবে ‘‘ভূমধ্যসাগরে মানব পাচারকারীদের অপরাধমূলক নেটওয়ার্কের পরিচালিত অভিবাসন প্রক্রিয়ার চেয়ে মর্যাদাপূর্ণ একটি পদ্ধতি নিশ্চিত করা৷’’

গত এক দশক ধরেই ডেনমার্ক একের পর এক কঠোর অভিবাসন নীতি চালু করে আসছে৷ ডেনিশ ভূখণ্ডে আসা শরণার্থীদের অন্য কোনো দেশের আশ্রয়কেন্দ্রে পাঠাতে গত বছর একটি আইন পাশ করে সরকার৷ সেসময় মানবাধিকার সংস্থাগুলো থেকে শুরু করে এর বিরোধিতা করেছে জাতিসংঘ ও ইউরোপীয় কমিশনও৷ তবে অংশীদার দেশ পেতে সফল না হওয়ায় আইনটি বাস্তবায়ন করতে পারেনি ডেনমার্ক৷

গত বছর থেকেই ইউরোপীয় ইউনিয়নের ভিতরে ও বাইরে চুক্তির জন্য সম্ভাব্য অংশীদার খোঁজার চেষ্টা চালাচ্ছে সরকার৷ এই বিষয়ে টিউনিসিয়া ও ইথিওপিয়ার সঙ্গে আলোচনা করেছে তারা৷ সেই সঙ্গে অভিবাসন ও রাজনৈতিক ইস্যু নিয়ে একটি কূটনৈতিক চুক্তি করে রুয়ান্ডার সঙ্গেও৷ তবে আশ্রয়প্রার্থীদের পাঠানোর বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত তখন হয়নি৷

অনিয়মিত উপায়ে আসা আশ্রয়প্রার্থীদের পাঠাতে গত সপ্তাহে রুয়ান্ডার সঙ্গে একটি চুক্তির ঘোষণা দিয়েছে ব্রিটেন৷ এর অধীনে সাম্প্রতিক সময়ে চ্যানেল পাড়ি দিয়ে যুক্তরাজ্যে প্রবেশ করা প্রায় এক হাজার আশ্রয়প্রার্থীকে পূর্ব আফ্রিকার দেশটিতে পাঠানো হতে পারে৷ ব্রিটেনের চুক্তির পর ডেনমার্কও রুয়ান্ডার সঙ্গে একই প্রক্রিয়ায় এগোতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে৷

‘দায়িত্বহীন’ পদক্ষেপ
এদিকে, ইউরোপীয় ইউনিয়নের আইন অনুসারে সদস্য দেশ জোটের বাইরে শরণার্থীদের পাঠাতে পারবে না বলে জানিয়েছে ইইউ কমিশন৷ কিন্তু ডেনমার্কের ক্ষেত্রে তা প্রযোজ্য নাও হতে পারে৷ কেননা আশ্রয় প্রক্রিয়াসহ ইইউর বেশ কিছু বিধি থেকে ডেনমার্ককে অব্যাহতি দেয়া আছে৷

এর আগে ২০১৬ থেকে ২০১৮ সালে ভূমধ্যসাগর হয়ে অভিবাসী আসার সংখ্যা ব্যাপক বেড়ে যাওয়ায় ইউরোপীয় ইউনিয়নের দেশগুলো নিজেদের মধ্যে এই বিষয়ে আলোচনা করে৷ সেসময় অভিবাসীদের বাইরের কোনো দেশে আশ্রয় দেয়ার সম্ভাব্যতাও তারা খতিয়ে দেখে৷ কিন্তু আইনি, মানবিক, রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও নিরাপত্তার বিবেচনায় এই প্রস্তাব বেশিদূর এগোতে পারেনি৷

ডেনমার্কের এমন উদ্যোগের অবশ্য বিরোধিতা করে আসছে দেশটির অভিবাসী ও মানবাধিকার নিয়ে কাজ করা সংস্থাগুলো৷ ডেনিশ রিফিউজি কাউন্সিল এক বিবৃতিতে আশ্রয়াপ্রার্থীদের আবেদন প্রক্রিয়ার জন্য বিদেশে পাঠানোকে ‘দায়িত্বহীন ও সংহতির অভাব’ বলে অভিহিত করেছে৷

তবে অভিবাসনমন্ত্রী মাতিয়াস টেসফায়ে জানিয়েছেন রুয়ান্ডার সঙ্গে এখনও কোনো চুক্তিতে পৌঁছেনি ডেনমার্ক৷ সেটি করতে হলে দেশটির পার্লামেন্টের অনুমোদন প্রয়োজন হবে৷






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published.