Main Menu

ভারতের ভিসার জন্য দীর্ঘ লাইন

নিউজ ডেস্ক:
দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর ভ্রমণ ভিসা দেয়া শুরু করেছে ভারত। সাথে সড়ক, রেল যোগাযোগও স্বাভাবিক হচ্ছে। এই অবস্থায় চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহ থেকেই ভারতীয় ভিসা আবেদন কেন্দ্রে (আইভিএসি) ভিড় বেড়েছে।

গত রোববার থেকেই রাজধানীর যমুনা ফিউচার পার্কের নিচ তলায় ভারতীয় ভিসা কেন্দ্রে অসংখ্য মানুষের ভিড় করছেন। রাজধানীর বাইরে সিলেট ও চট্টগ্রামের ভিসা আবেদন কেন্দ্রেও প্রায় একটি অবস্থা। ভোরে এসে রাত পর্যন্ত লাইনে দাড়িয়েও অনেকে ভিসার আবেদন জমা দিতে পারেনি বলে অভিযোগ উঠেছে।

যমুনা ফিউচার পার্কে এমনই একজনের সাথে কথা হয়। যার নাম মোস্তাফিজুর রহমান। তিনি ভারতের সিকিম-গ্যাংটক-দার্জিলিং যেতে চান। এ জন্য দরকার ভ্রমন ভিসা। মঙ্গলবার দিবাগত রাত ৩টা থেকে লাইনে দাড়িয়ে বুধবার গভীর রাত পর্যন্ত অপেক্ষা করেও কাঙ্খিত সাফল্য আসেনি তার। তবে তিনি আশাবাদী দ্রুত সময় যতই দরকার হোক আবেদন জমা দিতে পারবেন।

বোরহান উদ্দিন নামে আরেক ভিসাপ্রার্থী ফেসবুকে লিখেছেন, ‘প্রায় ৩-৪ হাজার লোকের মধ্যে সিরিয়াল শেষ করে ১৫-১৬ জনের মাথায় বন্ধ করে দিলো। আসলে আমি কপাল পোড়া।’

আশরাফুল হাবিব রনক নামে আরেক ব্যক্তি লাইনে দাঁড়িয়েছেন চট্টগ্রামের ভারতীয় ভিসা কেন্দ্রে। সামজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে একটি ভিডিও পোস্ট করে তিনি লিখেছেন, ‘লাগ্যাজ পার্টিদের জন্য শুভকামনা আর যাদের আসলেই জরুরি তাদের জন্য সমবেদনা আর দীর্ঘশ্বাস রইল। তার মতে, ভিসাপ্রার্থী ৫০ শতাংশ ট্যুরিস্টের ঠিকানা কলকাতা নিউমার্কেট।’

এদিকে গত কয়েকদিন ধরে মানুষের উপচেপড়া ভিড়ের পরিপ্রেক্ষিতে ভিসা সেন্টারগুলো বাড়তি সময় খোলা রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারতীয় ভিসা আবেদন কেন্দ্র (আইভিএসি)।

আইভিএসি জানায়, বুধবার থেকে রমজান মাসজুড়ে সমস্ত আইভিএসি সকাল ৮টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত চলবে। সকাল থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত পাসপোর্ট জমা নেওয়া হবে। আর বিকেল ৪টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত পাসপোর্ট ডেলিভারির কার্যক্রম চলবে।

করোনা মহামারির কারণে গত ২ বছর ধরে পর্যটন ভিসায় ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে যাত্রীদের যাতায়াত বন্ধ ছিল। দেশজুড়ে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বাড়তে থাকায় ২০২০ সালের মার্চ মাসে ভারত সরকার সব ধরনের অভ্যন্তরীণ এবং আন্তর্জাতিক ফ্লাইটে নিষেধাজ্ঞা জারি করে।

২০২০ সালের মে মাস থেকে অভ্যন্তরীণ ফ্লাইটগুলো চালুর অনুমতি দেওয়া হলেও আন্তর্জাতিক ফ্লাইট চলাচলে বিধিনিষেধ অব্যাহত ছিল। এয়ার বাবল ব্যবস্থার মাধ্যমে ওই বছরের অক্টোবর মাস থেকে বেশ কয়েকটি দেশের নাগরিকদের ভারতে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হচ্ছিল। ২৭ মার্চ থেকে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট স্বাভাবিক হয়েছে ভারতে। একই দিন থেকে বাংলাদেশিদের জন্য চালু হয়েছে ট্যুরিস্ট ভিসা।






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published.