Main Menu

অর্ধলাখেরও বেশি বাংলাদেশি এবার হজের সুযোগ পাবেন

নিউজ ডেস্ক:
মহামারীর কারণে দুই বছর বন্ধ রাখার পর বিদেশিদের জন্য হজের দুয়ার উন্মুক্ত করল সৌদি সরকার। সৌদি আরবের বাইরে থেকে ১০ লাখ মানুষের জন্য এ বছর হজ করার সুযোগ রেখে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে।

এ ঘোষণায় বাংলাদেশ থেকে ৬০ হাজার লোক হজে যেতে পারবেন। এ লক্ষ্যে প্রস্তুতি শুরু করেছে ধর্ম মন্ত্রণালয়। আগামী সপ্তাহের মধ্যে দেশটির সঙ্গে হজ কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক চুক্তিসম্পন্ন সাপেক্ষে পুরো কর্মসূচি ঘোষণা করবে ধর্ম মন্ত্রণালয়।

তবে, শর্তের বেড়াজালে ৬৫ বছর বা তার বেশি বয়সিরা বঞ্চিত হবেন হজ থেকে। সৌদি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের এ সিদ্ধান্ত ও শর্ত শিথিল করার জন্য বাংলাদেশ সরকার থেকে চিঠি দেওয়া হতে পারে। তবে, হজকার্যক্রম সীমিত ও হাজির সংখ্যা কমানোর কারণে এ বছর হজ করতে ইচ্ছুকদের ব্যয় বাড়তে পারে। সর্বশেষ সাড়ে ৩ লাখ টাকায় হজ করার সুযোগ পেলেও এবার তা বেড়ে সাড়ে ৫ লাখ টাকা নির্ধারিত হতে পারে। এ ছাড়া করোনার টিকা ছাড়া কেউ হজে যাওয়ার সুযোগ পাবেন না। খবর ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট সূত্রের।

হজ-সংক্রান্ত বিষয়ে ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে নাম প্রকাশ করে কেউই মন্তব্য করতে রাজি হননি। আর মন্ত্রণালয়ের সচিব ফোন রিসিভ না করায় তার মন্তব্য নেওয়া যায়নি।

ধর্ম মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বশীল একাধিক কর্মকর্তা জানান, করোনা পরিস্থিতির কারণে হজকার্যক্রম স্থগিত হয়ে যায়। সর্বশেষ ২০২০ সালের পর এখন পর্যন্ত নিবন্ধিত হজ আগ্রহীর সংখ্যা ৫৪ হাজার জন। এ ছাড়া প্রাক-প্রাথমিক নিবন্ধিত নাগরিক রয়েছে ২ লাখ ৫ হাজার। কিন্তু সৌদি সরকার চলতি বছর হজকার্যক্রম সীমিত করে বিভিন্ন দেশ থেকে ১০ লাখ মানুষকে পবিত্র এ কার্যক্রম সম্পন্নের সুযোগ দিয়েছে। বিভিন্ন দেশের রেশিও হিসাব করলে বাংলাদেশ থেকে ৬০ হাজার লোক এ বছর হজে যেতে পারবেন। করোনা পরিস্থিতির আগে সর্বশেষ বাংলাদেশ থেকে হজে গিয়েছিল ১ লাখ ২৭ হাজার জন নাগরিক। এবার অর্ধেক লোক হজে যেতে পারবেন।

অন্য এক কর্মকর্তা বলেন, এটি এখনই বলা যাচ্ছে না। কারণ সৌদি সরকারের সঙ্গে হজ-সংক্রান্ত বিষয়ে একটি সমঝোতা চুক্তি হবে। আশা করা হচ্ছে, আগামী সপ্তাহের মধ্যে এ কার্যক্রম সম্পন্ন হতে পারে। এরপর নিবন্ধনের জন্য সুযোগ দেওয়া হবে।

এদিকে, ৫৪ হাজার নিবন্ধিত ব্যক্তির মধ্যে ৬৫ বছর বা তার বেশি কজন নাগরিক আছে, সে তালিকা চিহ্নিত করার জন্য ধর্ম মন্ত্রণালয়ের হজ ব্যবস্থাপনা শাখা থেকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। বেশি বয়সি নাগরিকদের বাদ দিয়ে প্রাক-নিবন্ধন থেকে হজ শর্তের মধ্য থেকে নিবন্ধনের ক্রমানুসারে তালিকাভুক্ত করা হবে।

মন্ত্রণালয়ের সূত্র মতে, হজের প্রস্তুতির অংশ হিসেবে একটি প্রাথমিক গাইডলাইন জারি করা হয়েছে। এর মধ্যে দ্বিপক্ষীয় হজ চুক্তি স্বাক্ষর ও হজযাত্রীদের সংখ্যা নির্ধারণ, হজ প্যাকেজের প্রস্তুতি, ব্যাংক হিসাব খোলা-সংক্রান্ত কার্যাদী, হজযাত্রীদের বাড়িভাড়া, ওষুধ ও চিকিৎসা সরঞ্জাম সংগ্রহকরণ এবং সৌদি আরবে প্রেরণ, এজেন্সির তালিকা, ফ্লাইট শিডিউল, আইবিএএনের মাধ্যমে অর্থ প্রেরণ, টিকাণ্ডসংক্রান্ত কার্যক্রম, মৌসুমি হজ অফিসার নিয়োগ ও সৌদিতে প্রেরণ ও প্রশিক্ষণ। এ ছাড়া হাজিদের আনা-নেওয়ার জন্য বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস ও সৌদি এরাবিয়ান এয়ারলাইনসের ফ্লাইট চূড়ান্তকরণ।

এদিকে, হজের জন্য যে বিষয়গুলো বাধ্যতামূলক থাকতে পারে- ১. অভ্যন্তরীণ ও বিদেশি মিলে শুধু ১০ লাখ ব্যক্তিকে হজের অনুমতি দেবে। ২. হজ পালনকারীদের বয়স ১৮-৬৫-এর মধ্যে হতে হবে। ৩. হজ পালনকারীকে অবশ্যই সুস্বাস্থ্যের অধিকারী হতে হবে। ৪. হজ পালনকারীদের এ বিষয়টি প্রমাণপত্রসহ নিশ্চিত করতে হবে যে, হজের আগের ৬ মাস কোনো অসুস্থতায় হাসপাতালে ছিলেন না। ৫. হজে যাওয়ার আগে অবশ্যই করোনাভাইরাসের টিকার দুটি ডোজ সম্পন্ন করার প্রমাণপত্র সংগ্রহে রাখতে হবে। ৬. গ্রহণ করা টিকা সৌদি আরবের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় কর্তৃক স্বীকৃত হতে হবে। ৭. বিদেশিদের হজে আসার সঙ্গে সঙ্গে তিন দিন কোয়ারেন্টাইন করতে হবে। ৮. টিকার প্রথম ডোজ অবশ্যই ঈদুল ফিতরের আগে নিতে হবে এবং দ্বিতীয় ডোজ সৌদিতে পৌঁছার ১৪ দিন আগে নিতে হবে। ৯. পাশাপাশি করোনা সংক্রমণ রোধে সামাজিক দূরত্ব ও মাস্ক পরিধান নিশ্চিত করাসহ সব ধরনের স্বাস্থ্যবিধি সর্বাত্মকভাবে অনুসরণ করতে হবে।

উল্লেখ্য, করোনা পরিস্থিতির আগে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে ২৫ লাখ নাগরিক হজ করার সুযোগ পেতেন।






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published.