Main Menu

নিজে ও কাঁদলেন ও সবাইকে কাঁদালেন সাবেক অর্থমন্ত্রী আব্দুল মুহিত

নিউজ ডেস্ক:
ভুলত্রুটি হলে নিজগুনে ক্ষমা করে দেবেন। ‘নিজগুণে ক্ষমা’ করা একটি মহৎ শব্দ। দীর্ঘ দুই বছর পর সিলেটে ফিরে এক অনুষ্ঠানে এমন কথা বলেন সাবেক অর্থমন্ত্রী ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আবুল মাল আবদুল মুহিত। এসময় শীর্ণকায় মুহিত অনুষ্ঠানে উপস্থিত দর্শকদের কাঁদিয়েছেন। কেঁদেছেন নিজেও।

বুধবার সন্ধ্যায় সিলেটের ঐতিহ্যবাহি আলী আমজদের ঘড়ি ঘরের সামনে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের (সিসিক) পক্ষ থেকে তার আজীবন সুকীর্তির স্বীকৃতি স্বরূপ দেওয়া সম্মাননায় আবুল মাল আবদুল মুহিত এসব কথা বলেন।

সিলেট সিটি কর্পোরেশনের গুণীশ্রেষ্ঠ সম্মাননা পেয়ে নিজেকে গর্বিত মনে করেন বাংলাদেশের কীর্তিমান রাজনীতিবিদ, সফল অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।

তিনি বলেন, নিজের জন্মস্থানে এমন একটি সম্মাননা গৌরবের। আমি একান্তভাবে সিলেটের মানুষ। আমার ভুল-ত্রুটি মাফ করে দেবেন।

বুধবার রাত আটটায় তিনি অনুষ্ঠান স্থলে হাজির হলে সিলেট মহানগর পুলিশের বাদক দল তাকে অর্ভ্যথনা জানায়। এরপর মঞ্চে মেয়র, কাউন্সিলরসহ সিসিকের কর্মকর্তারা তাকে ফুল দিয়ে বরণ করেন।

মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী গুণীশ্রেষ্ঠ সম্মাননা স্মারক হিসেবে শতবর্ষী আলী আমজদের ঘড়ির স্বর্ণ খচিত র্যাপলিকা আনুষ্ঠানিকভাবে হস্থান্তর করেন।

অনুষ্ঠানের নাগরিক সমাজের পক্ষ থেকে স্বাগত বক্তব্য দেন, নর্থইষ্ট ইউনিভার্সিটির উপাচার্য্য ড. ইলিয়াস উদ্দিন বিশ্বাস। অনুষ্ঠানে মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সিসিকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বিধায়ক রায় চৌধুরী।

এর আগে বুধবার বিকেলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস-২০২২ উপলক্ষে পারিবারিকভাবে আয়োজিত অনুষ্ঠানেসাবেক অর্থমন্ত্রী বলেন, `বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কেবল একজন রাজনৈতিক নেতা ছিলেন না; তিনি একজন মহামানব। জাতি হিসেবে আমরা তার মতো নেতা পেয়ে সৌভাগ্যবান।’

সিলেট নগরীর হাফিজ কমপ্লেক্সে আবুল মাল আবদুল মুহিত-এর পরিবারের পক্ষ থেকে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। সাবেক অর্থমন্ত্রী মুহিত বলেন, `মহামানব সবসময় জন্ম হয় না। গত শতাব্দীতে বঙ্গবন্ধুই ছিলেন বাঙালি জাতির ইতিহাসের শ্রেষ্ঠ সন্তান, শ্রেষ্ঠ নেতা। তার জন্ম হয়েছিল বলেই বাংলাদেশ বিশ্ব দরবারে একটি স্বাধীন দেশের গৌরব অর্জন করতে পেরেছে। বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা বর্তমানে বাংলাদেশকে নেতৃত্ব দিয়ে একটি উন্নত ও সমৃদ্ধ দেশ গড়ে তুলেতে সক্ষম হয়েছেন।’

এ সময় কেক কাটা ও দোয়ার আয়োজন করা হয়। বঙ্গবন্ধুর বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ বঙ্গবন্ধুর পরিবারের জীবিত সব সদস্যের দীর্ঘায়ু কামনা করে মোনাজাত করা হয়।

সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নাসির উদ্দিন খাঁনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথির বক্তব্য দেন, সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মাসুক উদ্দিন আহমদ, জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও সিলেট-২ আসনের সাবেক এমপি শফিকুর রহমান চৌধুরী, সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক জাকির হোসেন। মুহিত পরিবারের পক্ষে বক্তব্য দেন, অধ্যাপক ডা. এ কে এম হাফিজ।






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published.