Main Menu

রক্তপাতের দায় ন্যাটোরও: ইউক্রেনের উপপ্রধানমন্ত্রী

ডেস্ক রিপোর্ট:
রাশিয়ার চলমান আগ্রাসনে ইউক্রেনে ‘নো ফ্লাই জোন’ কার্যকর করতে পশ্চিমা সামরিক জোট ন্যাটোর প্রতি কিয়েভ আহ্বান জানালেও তাতে সাড়া মেলেনি। নো-ফ্লাই জোন কার্যকরে অস্বীকৃতি জানানোয় দেশটিতে রাশিয়ার হামলায় বেসামরিক নাগরিকদের প্রাণহানির জন্য ন্যাটোকেও আংশিকভাবে দায়ী করেছে কিয়েভ।

বৃহস্পতিবার ইউক্রেনের উপপ্রধানমন্ত্রী ওলফা স্টেফানিশিনা বিবিসি রেডিও ৪’কে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ন্যাটোর বিরুদ্ধে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। তিনি বলেছেন, নো-ফ্লাই জোন কার্যকরের সিদ্ধান্ত না নেওয়ার ফলে বেসামরিক জনগণ এবং শিশুদের হত্যা করা হবে, এটি অমানবিক।

ইউক্রেনের এই উপপ্রধানমন্ত্রী বলেছেন, গতকাল জন্ম নেওয়া দুই শিশু, যারা গোলার আঘাতে তাদের বাবা-মাকে হারিয়েছেন; তারাসহ সেসব বেসামরিক নাগরিকদের রক্ত কেবলমাত্র রাশিয়ার হাতে নয়, ন্যাটোর হাতেও আছে।

দেশটিতে চলমান যুদ্ধে হতাহতের ঘটনায় ন্যাটো জোটের অবস্থানের সমালোচনার ক্ষেত্রে কূটনৈতিকসুলভ ভাষা পছন্দ করতে না পারার জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করেছেন স্টেফানিশিনা। কারণ হিসাবে দেশটিতে বোমার মাঝে বসে তিনি কথা বলছেন বলে জানিয়েছেন।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি রাশিয়ার সামরিক বাহিনীর অভিযান শুরুর পর ইউক্রেনে নো-ফ্লাই জোন ঘোষণা করতে পশ্চিমা সামরিক জোট ন্যাটোর সদস্যদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছিল কিয়েভ। কিন্তু সেখানে নো-ফ্লাই জোন ঘোষণা করা হলে তা রুশ বিমান বাহিনীর সাথে পশ্চিমা সামরিক বাহিনীর সরাসরি সংঘাতে জড়িয়ে পড়ার ঝুঁকি বাড়িয়ে তুলবে আশঙ্কায় ন্যাটো সেই সিদ্ধান্ত নেওয়া থেকে বিরত থাকে।

রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লাভরভ বলেছেন, কিছু বিদেশী নেতা রাশিয়ার বিরুদ্ধে যুদ্ধের প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে বিশ্বাস করেন তিনি। তবে মস্কো একেবারে ‘শেষ’ পর্যন্ত ইউক্রেনে সামরিক অভিযান চালাবে। বৃহস্পতিবার মস্কোতে এক সংবাদ সম্মেলনে এই মন্তব্য করেছেন রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী। তিনি বলেছেন, পারমাণবিক যুদ্ধের কোনো চিন্তা নেই রাশিয়ার।

ইউক্রেনে রাশিয়ার আক্রমণের এক সপ্তাহ পর রাষ্ট্রায়ত্ত টেলিভিশনে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কিকে একজন ‘জাতিগত ইহুদি’ এবং ‘তিনি এমন একটি সমাজের নেতৃত্ব দিচ্ছেন, যেখানে নাৎসিবাদ লালন করা হয়’ বলে অভিযোগ করেছিলেন লাভরভ। তবে এসব অভিযোগের ব্যাপারে কোনো ধরনের প্রমাণ দেখাতে পারেননি রাশিয়ার এই পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

তিনি বলেছেন, ইউক্রেন সংকটের একটি সমাধান পাওয়া যাবে এবং এ বিষয়ে তার কোনো সন্দেহ নেই। ইউক্রেনীয় এবং রুশ কর্মকর্তাদের মধ্যে নতুন করে আলোচনা শুরু হতে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

তবে পশ্চিমাদের সাথে আলোচনা অবশ্যই পারস্পরিক সম্মানের ভিত্তিতে হতে হবে বলে জানিয়েছেন সের্গেই লাভরভ। পশ্চিমা সামরিক জোট ন্যাটোর বিরুদ্ধে আধিপত্যবাদ টিকিয়ে রাখার অভিযোগ করেছেন তিনি। বলেছেন, প্রচণ্ড সদিচ্ছা থাকলেও কাউকে নিজের স্বার্থ ক্ষুণ্ন করতে দিতে পারে না রাশিয়া।

তিনি বলেন, রাশিয়ার জন্য হুমকি এমন কোনো স্থাপনা ইউক্রেনকে রাখতে দেবে না মস্কো। লাভরভ বলেন, ইউক্রেনের কাছ থেকে উদ্ভূত সামরিক হুমকিও মস্কো সহ্য করবে না। ইউক্রেনের ওপর রাশিয়ার অধিকার আছে বলে তিনি বিশ্বাস করেন।

রুশ এই পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘পশ্চিমা রাজনীতিকদের মাথায় ক্রমাগত পরমাণুর চিন্তা ঘুরপাক খাচ্ছে, রাশিয়ানদের মাথায় নয়। আমি আপনাদের আশ্বস্ত করছি যে, আমাদের ভারসাম্যহীনতার জন্য কোনো ধরনের উসকানি মেনে নেব না।’






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published.