Main Menu

ইউক্রেনের আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ শহর রাশিয়ার দখলে, নিহত ২০০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:
ইউক্রেনে রাশিয়ার সামরিক অভিযান চলছেই। থামার কোন লক্ষণ নেই। টানা ৭ম দিনে অভিযানে দেশটির আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ শহর দখলে নিয়েছে রুশ সেনারা। খেরসন নিয়ন্ত্রণ নিতে গিয়ে ২০০ মানুষের প্রাণহানি ঘটেছে।

স্থানীয় কাউন্সিলের এক সদস্যের বরাত দিয়ে এই খবর প্রকাশ করেছে বিবিসি।

খেরসনের স্থানীয় কাউন্সিলের সদস্য জানান, খেরসন শহরটিতে প্রায় আড়াই লাখ মানুষের বসবাস। এখানে ২০০ মানুষের প্রাণহানি ঘটেছে, যার বেশিরভাগই বেসামরিক। শহরটির মেয়র ইগর কলিখায়েব সরকার এবং সাহায্য সংস্থাগুলোর কাছে খাদ্যপণ্য ও ওষুধ সরবরাহ নিশ্চিত করতে এবং আহতদের উদ্ধারে সাহায্যের আবেদন করেছেন।

তিনি আরও জানান, ভারি বর্ষণের পর রাশিয়ার সেনাবহর দেখা গেছে খেরসনে। রুশ সেনাদের মঙ্গলবারই খেরসনের উত্তরাঞ্চলে অবস্থান নিয়ে রাখতে দেখা গেছে। তারা গোলাবর্ষণ ও গুলিবর্ষণ বাড়িয়েছে।

এর আগে গতকালই খেরসনের মেয়র ফেসবুকে হৃদয়স্পর্শী স্ট্যাটাস দিয়ে জানান, আবাসিক ভবনগুলোতে আগুন জ্বলছে। শহরের স্থাপনাগুলো পুড়ছে।

এদিকে ইউক্রেনের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় শহর জায়তোময়ারে রুশ ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় বেশ কয়েকটি আবাসিক ভবন ক্ষেপনাস্ত্র হামলা হয়েছে। এতে ভবনগুলো ক্ষতিগ্রস্ত এবং আগুন ধরে যায়। কর্তৃপক্ষ বলেছে, এই হামলায় চার জন নিহত হয়েছেন।

এদিকে স্বাধীনতাকামী জাতিরা একজোট হয়ে আমেরিকার পাশে এসে দাঁড়িয়েছে উল্লেখ করে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেছেন, ইউক্রেনে চলমান সামরিক অভিযানে শেষপর্যন্ত জয়ী হলেও এজন্য দীর্ঘমেয়াদে চড়া মূল্য দিতে হবে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনকে।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের কার্যালয় হোয়াইট হাউসে দেওয়া এক ভাষণে বাইডেন বলেন, ‘যুদ্ধক্ষেত্রে হয়তো তিনি জয়ী হবেন, যে উদ্দেশ্যে এই অভিযানের নির্দেশ তিনি দিয়েছেন, তা হয়তো সফল হবে— কিন্তু এজন্য দীর্ঘমেয়াদে চড়া মূল্য দিতে হবে তাকে।’






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published.