Main Menu

ঐতিহাসিক বানিয়াচংয়ের পুরাতন স্থাপনাগুলো পর্যটনের আওতায় আসবে: পর্যটন প্রতিমন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক:
বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট মাহবুব আলী এমপি বলেছেন, বিশ্বের অনেক দেশ রয়েছে যা পর্যটন শিল্প দিয়ে পরিচিত। এর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে নেপাল। পর্যটনের দিক থেকে বাংলাদেশও পিছিয়ে নেই। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার চৌকস নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে চলেছে। পর্যটন শিল্পের দিকে সাধারণ মানুষের আগ্রহ ক্রমাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে। পর্যটন শিল্পকে এগিয়ে নিতে হলে প্রথমে পর্যটকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। হবিগঞ্জের ঐতিহাসিক বানিয়াচংয়ের পুরাতন স্থাপনাগুলোকে পর্যটনের আওতায় নিয়ে আনতে কাজ করছে সরকার।

শুক্রবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে হবিগঞ্জের বানিয়াচংয়ে সোয়াম ফরেস্ট নামে খ্যাত লক্ষীবাওর জলাবনে ২৫ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিতব্য রেস্ট হাউজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনকালে এক সুধী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, হবিগঞ্জ জেলা এখন আর পিছিয়ে নেই। শিল্প জেলা হিসেবে এখন সমধিক পরিচিত। সেই সাথে পর্যটনের অপার সম্ভাবনা রয়েছে এ জেলায়। এক্ষেত্রে বানিয়াচংয়ের লক্ষীবাওর জলাবন, ঐতিহাসিক কমলাবতির সাগর দিঘি, শ্রী শ্রী বিথঙ্গলের আখড়া ও গড়ের হালসহ বিভিন্ন জায়গা পর্যটন স্পট হিসেবে সবার কাছে পরিচিতি পাচ্ছে। পর্যায়ক্রমে এসব জায়গাকে পর্যটনের আওতায় নিয়ে আসা হবে। এতে সরকার যেমন রাজস্ব পাবে, তেমনি এলাকাগুলোরও উন্নতি হবে।

সুধী সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক ইশরাত জাহান। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পদ্মাসন সিংহের সঞ্চালনায় বক্তব্য দেন, বানিয়াচং উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. ইকবাল হোসেন খান, থানার ওসি মোহাম্মদ এমরান হোসেন, হবিগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক রাশেদ আহমদ খান, ইউপি চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা হায়দারুজ্জামান খান ধন মিয়া, আরফান উদ্দিন ও আব্দুল আহাদ মিয়া।

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, প্রতিমন্ত্রীর পিএস আব্দুল জলিল, সহকারী কমিশনার (ভূমি) ইফফাত আরা জামান ঊর্মি, অ্যাডভোকেট মুর্শেদুজ্জামানসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার ব্যক্তিবর্গ।






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published.