Main Menu

ভারতে হিজাবকাণ্ডে চাকরি থেকে ইস্তফা দিলেন মুসলিম শিক্ষিকা

নিউজ ডেস্ক:
ভারতের কর্ণাটকে হিজাবকাণ্ডে এবার চাকরি থেকে ইস্তফা দিয়েছেন এক কলেজ শিক্ষিকা। সম্প্রতি কলেজে প্রবেশ করার জন্য মুসলিম ওই শিক্ষিকাকে হিজাব খুলতে বলা হয়। এরপরই তিনি ইস্তফা দেয়ার সিদ্ধান্ত নেন।

এনডিটিভির খবরে বলা হয়েছে, আত্মমর্যাদায় আঘাতের কথা উল্লেখ করে ইস্তফা দিয়েছেন রাজ্যের জৈন পিইউ কলেজের ইংরেজি শিক্ষিকা চাঁদিনী।

চাঁদিনী জানান, তিনি প্রায় তিন বছর কলেজে শিক্ষকতা করছেন। এই সময়ের মধ্যে কখনো এমনটি ঘটেনি। প্রথমবারের মতো তাকে হিজাব খুলে ফেলতে বলা হয়।

তিনি বলেন, ‘আমি গত তিন বছর ধরে জৈন পিইউ কলেজে কাজ করছি। আমি এখন পর্যন্ত কোনো সমস্যার সম্মুখীন হইনি। কিন্তু গতকাল অধ্যক্ষ আমাকে বলেছিলেন যে আমি পড়াতে গিয়ে হিজাব বা কোনো ধর্মীয় পোশাক পরতে পারি না। কিন্তু আমি গত তিন বছর ধরে হিজাব পরেই পড়িয়েছি। এই নতুন সিদ্ধান্ত আমার আত্মসম্মানে আঘাত দিয়েছে। তাই আমি পদত্যাগ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’

কলেজের অধ্যক্ষ কেটি মঞ্জুনাথ অবশ্য বলেছেন, তিনি বা ম্যানেজমেন্টের অন্য কেউই তাকে হিজাব খুলে ফেলতে বলেননি।

কর্ণাটকের স্কুল এবং কলেজগুলোতে হিজাব নিয়ে তুমুল উত্তেজনা চলছে। হিন্দুত্ববাদীরা হিজাব পরার বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন।

গত বছরের শেষের দিকে বিক্ষোভ শুরু হয়েছিল যখন ছয়জন ছাত্রী অভিযোগ করেছিল যে তাদের হিজাব পরে ক্লাসে যেতে বাধা দেওয়া হয়েছিল। বিক্ষোভটি বেশ কয়েকটি কলেজে ছড়িয়ে পড়ার পর পাল্টা বিক্ষোভ শুরু করে হিন্দুত্ববাদীরা।

উত্তেজনার মধ্যে কর্ণাটক সরকার হাই স্কুল ও কলেজ বন্ধ রাখার নির্দেশ দেয়। পরে পরিস্থিতির উন্নতি হলে আবারও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেয়া হচ্ছে। তবে সেখানে হিজাব পরে প্রবেশ করতে দেয়া হচ্ছে না।

কর্ণাটক হাইকোর্ট স্কুলগুলোতে সমস্ত ধর্মীয় পোশাক পরার উপর সাময়িক নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। তার মধ্যে হিজাবেও অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published.