Main Menu

মালয়েশিয়ায় শ্রমবাজার চালুর আগেই সিন্ডিকেটের গুঞ্জন

নিউজ ডেস্ক:
মালয়েশিয়ায় শ্রমবাজার চালুর আগেই সিন্ডিকেটের গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে। এবার সিদ্ধান্ত হয়েছে, সমঝোতা চুক্তি অনুযায়ী কর্মী নিয়োগে সব খরচ বহন করবে মালয়েশিয়া। তবে জনশক্তি রফতানিকারকরা এ নিয়ে সন্দিহান। তারা বলছেন, বাস্তবে এমন হওয়ার সুযোগ নেই। বরং শ্রমবাজার ঘিরে মাথাচাড়া দিতে পারে অশুভ চক্র।

দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর খুলছে মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার। এর মধ্যে সমঝোতা চুক্তি হয়েছে। বাকি আনুষ্ঠানিকতা শেষ হবে চলতি মাসে। এরপরই শুরু হতে পারে কর্মী প্রেরণ। মালয়েশিয়ায় কর্মী প্রেরণ নিয়ে সিন্ডিকেট হচ্ছে কিনা? তা নিয়ে শুরু হয়েছে আলোচনা। বায়রার সাবেক মহাসচিব আলী হায়দার চৌধুরী বলছেন, আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। আর বায়রার আরেক সাবেক মহসচিব রুহুল আমিন স্বপনও বলছেন, এবার সিন্ডিকেটমুক্ত উন্মুক্ত শ্রমবাজারের প্রতিশ্রুতিতে আস্থা রাখতে চান তিনি।

সমঝোতা চুক্তিতে বলা হয়েছে রিক্রুটিং এজেন্সি ঠিক মালয়েশিয়া। যদিও এটি নিয়ে মতবিরোধ আছে রিক্রুটিং এজেন্সির মধ্যে। সীমিত সংখ্যাক এজেন্সির মাধ্যমে কর্মী প্রেরণ করা হলে অভিবাসন ব্যয় বাড়তে পারে। তা নিয়েও বিতর্ক আছে জনশক্তি রফতানিকারকদের মধ্যে।

সমঝোতা চুক্তি অনুযায়ী কর্মী নিয়োগে সব ব্যয় বহন করবে মালয়েশিয়া। বাস্তবে তা হবে না বলেই মনে করে দুপক্ষই। আলী হায়দার চৌধুরী বলছেন, কর্মী নিয়োগের ব্যয় বহন সংক্রান্ত ব্যাপারে সরকার যা বলেছে, তা মূলত আনুষ্ঠানিক বক্তব্য। সরকারি ভাষা আর ব্যবহারিক ভাষা এক নয় বলেও উল্লেখ করেন তিনি। এর মধ্যে অনেক হিডেন চার্জ থাকবে, যা কেউই বহন করবে না। এসব শেষপর্যন্ত শ্রমিকদেরই বহন করতে হবে বলেও মনে করছেন তিনি।

এদিকে, চলতি মাসেই কর্মী নিয়োগ পদ্ধতি চূড়ান্ত হলে সব বিষয় পরিস্কার হবে বলেও আশা জনশক্তি রফতানিকারকদের।
/এডব্লিউ






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published.